মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ৪ অক্টোবর ২০১৫

বাংলাদেশ রেশম গবেষণা ও প্রশিক্ষণ ইন্সটিটিউট এর সাফল্য

 বাংলাদেশ রেশম গবেষণা ও প্রশিক্ষণ ইন্সটিটিউট দেশে রেশম প্রযুক্তি উদ্ভাবন ও দক্ষ জনশক্তি সৃষ্টির একমাত্র প্রতিষ্ঠান। দেশে রেশম শিল্পের বিকাশে কারিগরি সহায়তা ও দক্ষ জনশক্তি সৃষ্টিতে এ প্রতিষ্ঠানের উল্লেখযোগ্য অবদান রয়েছে।বিগত ৩ বছরে জার্মপ্লাজম ব্যাংকে তুঁতজাতের সংখ্যা ৬৮-৭০টিতে এবং রেশমকীট জাতের সংখ্যা ৯৪ - ৯৭টিতে উন্নীত করা সম্ভব হয়েছে। বছরে হেক্টর প্রতি তুঁতপাতার উৎপাদন ৩৭.০০ - ৪০.০০ থেকে ৪০.০০ - ৪৭.০০ মে: টনে এবং ১০০ রোগমুক্ত ডিমে (ডিএফএল) রেশমগুটির উৎপাদন ৬০ - ৭০ কেজি থেকে ৭০ - ৭৫ কেজিতে উন্নীত করা সম্ভব হয়েছে। তুঁতচাষে সাথী ফসলের চাষ পদ্ধতি উদ্ভাবন করা হয়েছে। ফলে জমির বহুমাত্রিক ব্যবহার ও চাষীদের বাড়তি আয়ের সুযোগ সৃষ্টি হচ্ছে। স্প্রিংলার সুবিধাসহ সেচ অবকাঠামো স্থাপন করায় পুষ্টিমান সমৃদ্ধ পরিমানগত তুঁতপাতা উৎপাদন করা সম্ভব হচ্ছে। রেনডিটা (১ কেজি কাঁচা রেশম সুতা উৎপাদনে যে পরিমান রেশম গুটির প্রয়োজন) ১৮ - ২০ থেকে ১০ - ১২ তে উন্নীত করা সম্ভব হয়েছে এবং প্রশিক্ষণের মাধ্যমে এ যাবৎ রেশম সেক্টরের দক্ষ জনশক্তি ২,৯০০ জন হতে ৫,৭২১ জনে উন্নীত করা হয়েছে।


Share with :