মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ১st August ২০২১

মাননীয় মন্ত্রী

 

                                                                                                                                    

জনাব গোলাম দস্তগীর গাজী,বীরপ্রতীক,এমপি

২০৪,নারায়ণগঞ্জ-১

দলগত পরিচয় : বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ

গোলাম দস্তগীর গাজীবীরপ্রতীক,এমপি,(জাতীয় পরিচয়পত্র নং-১৯৪৮৬৭২৬৮১৪৫৬৪৯০৮) ১৯৪৮ সালের ১৪ আগস্ট নারায়নগঞ্জ জেলার সম্ভ্রান্ত গাজী পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেন । তাঁর পিতার নাম  গোলাম কিবরিয়া গাজীএবং মাতা সামসুন নেসা বেগম।মেধাবী গোলাম দস্তগীর গাজী মাধ্যমিকের পর উচ্চ মাধ্যমিক পাস করেন নটরডেম কলেজ থেকে। পরে ১৯৬৮ সালে জগন্নাথ কলেজ থেকে বি.এসসি. ডিগ্রি লাভ করেন। ১৯৬৬-তে ছয় দফা আন্দোলন ও ১৯৬৯-এর গণঅভ্যুত্থানে ছাত্রলীগের সক্রিয় কর্মী হিসেবে রাজপথে সক্রিয় ছিলেন গোলাম দস্তগীর গাজী। এরই ধারাবাহিকতায় ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়ে বীরত্বপূর্ণ অবদান রাখেন। 

নারায়ণগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য গোলাম দস্তগীর গাজী দীর্ঘদিন রাজপথের আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত। ৬ দফা আন্দোলন৬৯-এর গণঅভ্যুত্থান৭০-এর নিবার্চন৭১-এর মুক্তিযুদ্ধএরপর ৭৫-এর কালরাত্রি; এর সব ঘটনায় জীবনবাজি রেখে লড়াই করেছেন। তৃণমূলের নেতা হিসেবে আওয়ামী লীগকে সুসংগঠিত করতে কাজ করেছেন এবং করে যাচ্ছেন।

মহান মুক্তিযুদ্ধে ২ নম্বর সেক্টরে বীরত্বের সঙ্গে অংশগ্রহণ করেন গোলাম দস্তগীর গাজী। বিখ্যাত ক্র্যাক প্লাটুনের একজন যোদ্ধা হিসেবে দুঃসাহসিকতার সঙ্গে বিভিন্ন সম্মুখ সমরে অংশ নেন তিনি। মুক্তিযুদ্ধে বীরত্বপূর্ণ অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার তাকে বীরপ্রতীক খেতাবে ভূষিত করে। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার জাতীয় পর্যায়ে গৌরবোজ্জ্বল ও কৃতিত্বপূর্ণ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধে অসামান্য অবদানের জন্য বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী,বীরপ্রতীক,এমপি কে 'স্বাধীনতা পুরস্কার - ২০২০' প্রদান করা হয়

 

স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে রাজনীতিতে থাকলেও গোলাম দস্তগীর গাজী  নিজ বুদ্ধিমত্তাউদ্ভাবনী চিন্তাশক্তি ও কর্মদক্ষতা কাজে লাগান যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশের অবকাঠামো পুনর্গঠনে। ১৯৭৪ সালে দেশের চাহিদার কথা মাথায় রেখে ও দেশের শিল্প খাতকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার লক্ষ্যে প্লাস্টিক ও রাবারজাত পণ্য উৎপাদনকারী কারখানা স্থাপন করেন। বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে দেশের মানুষের অর্থনৈতিক মুক্তির উদ্দেশ্যে কাজ করে যাচ্ছেন তিনি।

গোলাম দস্তগীর গাজী ১৯৭৭ সালে অনুষ্ঠিত ঢাকা সিটি করপোরেশনের প্রথম নির্বাচনে কাকরাইলসিদ্ধেশ্বরীমালিবাগমৌচাকইস্কাটন ও মগবাজার এলাকা থেকে আওয়ামীলীগ মনোনীত কমিশনার নির্বাচিত হন। রাজনৈতিক জীবনের বহু চড়াই-উৎরাই পার করা গোলাম দস্তগীর গাজী ৯০-এর দশক থেকে পৈতৃক ভূমি নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ এলাকাবাসীর জন্য কাজ করতে শুরু করেন।

২০০৬ সালে ওয়ান-ইলেভেনের সময় বিভিন্ন মহলের চাপ উপেক্ষা করেও বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অটল ছিলেন গোলাম দস্তগীর গাজী। পরে ২০০৮ সালের নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিপুল ভোটের ব্যবধানে নারায়ণগঞ্জ-১ (রূপগঞ্জ) আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। সংসদ সদস্য হওয়ার পর এলাকায় ব্যাপক উন্নয়ন কর্মকাণ্ড পরিচালিত হয় তার নেতৃত্বে। সফল ব্যবসায়ী ও রাজনীতিবিদ পরিচয়ের বাইরে সমাজসেবক এবং বাংলাদেশের একজন বিশিষ্ট ক্রীড়া পৃষ্ঠপোষক ও ক্রীড়া অনুরাগী হিসেবে তাঁর ব্যাপক পরিচিতি রয়েছে ।

২০০৮ সালের পর ২০১৪ সালের দশম জাতীয় সংসদ এবং সদ্য ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও তিনি একই আসন থেকে জনরায় নিয়ে নির্বাচিত হয়ে আসেন। এ নিয়ে টানা তিন মেয়াদে নারায়ণগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য হলেন গোলাম দস্তগীর গাজী । তিনি ৯ম জাতীয় সংসদের অর্থ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটি১০ম জাতীয় সংসদে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটি এবং একই সংসদে সরকারি হিসাব সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেন।

 

সমাজসেবামূলক কার্যক্রমে ভূমিকা রাখার জন্যে ২০১৮ সালে গোলাম দস্তগীর গাজী অতীশ দীপংকর’ পদকে ভূষিত হন। ব্যক্তি পর্যায়ে ২০১২-১৩ কর বর্ষে ১০ম সর্বোচ্চ করদাতা২০১৩-১৪ কর বর্ষে ৩য় সর্বোচ্চ করদাতা,২০১৪-১৫ কর বর্ষে ৮ম সর্বোচ্চ করদাতা,২০১৫-১৬ কর বর্ষে ৩য় সর্বোচ্চ করদাতাএবং সিনিয়র সিটিজেন ক্যাটাগরিতে ২০১৬-১৭ করবর্ষে ২য় সর্বোচ্চ করদাতা এবং ২০১৭-১৮ করবর্ষে ১ম সর্বোচ্চ করদাতা ।

০৭ জানুয়ারি২০১৯ তারিখে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মন্ত্রী হিসেবে শপথ গ্রহণ করেন এবং ৮ জানুয়ারি২০১৯ তারিখে বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বভার গ্রহণ করেন।

 

নতুন মন্ত্রিপরিষদে এবার একমাত্র খেতাবপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে ঠাঁই পেয়েছেন নারায়ণগঞ্জ-১ (রূপগঞ্জ) আসন থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য গোলাম দস্তগীর গাজী (বীরপ্রতীক)। খেতাবপ্রাপ্ত কোনো মুক্তিযোদ্ধা হিসেবেই শুধু নয় স্বাধীনতার পর আওয়ামী লীগ শাসনামলে নারায়ণগঞ্জ জেলা থেকে প্রথম মন্ত্রী হলেন তিনি।

গোলাম দস্তগীর গাজী আওয়ামী লীগের নারায়ণগঞ্জ জেলা কমিটির সদস্য ও গাজী গ্রুপের চেয়ারম্যান। বাংলাদেশ চায়না চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজবাংলাদেশ টায়ার টিউব ম্যানফ্যাকচারার এন্ড এক্সপোটারর্স এসোসিয়েশনমেরিনার্স ক্লাব,ঢাকা এর সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি কিশোরগঞ্জ চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজযমুনা ব্যাংক লিঃ এর পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন । তিনি বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের  সহসভাপতি হিসেবে দায়িত্বরত ছিলেন । তিনি বাংলাদেশ ফেডারেশন অব চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজ,বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজ এর পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি যমুনা ব্যাংক লিঃ প্রাক্তন চেয়ারম্যান ছিলেন।  এছাড়া বেসরকারি স্যাটেলাইট টেলিভিশন জিটিভিঅনলাইন নিউজ পোর্টাল সারাবাংলা ডটনেট ও দৈনিক সারাবাংলার সত্ত্বাধিকারী ।

তাঁর কর্ম ও রাজনৈতিক জীবনে শিক্ষার বিস্তার অগ্রাধিকার হিসাবে গুরুত্ব পেয়েছে। শিক্ষার বিস্তারে  তিনি প্রায় বহু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠা ও উন্নতি সাধন করেছেন। এর মধ্যে জামালপুর জেলাধীন প্রত্যন্ত এলাকায় হাসিনা গাজী উচ্চ বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেন ।  তিনি রূপগঞ্জে মুঢ়াপাড়া ডিগ্রী কলেজরূপসী মেডেল স্কুল এন্ড কলেজভুলতা স্কুল এন্ড কলেজ,জনতা স্কুল এন্ড কলেজ সমূহ উন্নতি সাধন করেন ও সভাপতি হিসেবে সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার দায়িত্ব নিজে পালন করেন। এছাড়াও গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স,রূপগঞ্জ টাইর্গাস ক্রিকেট ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা এবং মেরির্নাস ক্রিকেট ক্লাবের সভাপতি ।

সুষম উন্নয়ন ও দারিদ্র্য বিমোচনের মাধ্যমে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ার প্রত্যয়ে অথবা (সোনার বাংলা গড়ার সৈনিক হিসেবে) তিনি নিজ নির্বাচনী এলাকা ছাড়াও বাংলাদেশের প্রতিটি এলাকায় উন্নয়নের প্রচেষ্টা গ্রহণ করেছেন। তিনি শিক্ষাস্বাস্থ্যযোগাযোগ এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি/কুটির শিল্প খাতে স্ব-উদ্যোগে সহায়তা দিয়ে দেশের মানুষের জীবন-মান উন্নয়নে চেষ্টা করে যাচ্ছেন।


তিনি যুক্তরাষ্ট্রযুক্তরাজ্যচীনজাপানকোরিয়াসৌদি আরবকুয়েতসংযুক্ত আরব আমিরাত (দুবাই)ভারতসিঙ্গাপুরথাইল্যান্ডমালয়েশিয়াঅস্ট্রেলিয়ানিউজিল্যান্ডসুইজারল্যান্ড এবং  ফ্রান্সজার্মানিইটালিস্পেননেদারল্যান্ডসুইডেন ও ডেনমার্কসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ ব্যবসায়িক ও সরকারি কাজে ভ্রমন করেছেন।

জনাব গোলাম দস্তগীর গাজীবীরপ্রতীক,এমপি এর স্ত্রী হাসিনা গাজী বর্তমানে নারায়নগঞ্জের তারাবো পৌরসভার মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন সাথে সাথে বিভিন্ন সামাজিক উন্নয়ন কাজে  সম্পৃক্ত রয়েছেন। তাঁর দুই পুত্র-গাজী গোলাম মুর্তজা এবং গাজী গোলাম আসরিয়া। ব্যক্তি জীবনে খেলাধূলা বিশেষ করে ক্রিকেট,ফুটবল,হাডুডু,তীর-ধনুক এবং শুটিং পছন্দ করেন। সাংস্কৃতিক চর্চা যেমন গান,যাত্রা ও নাটক,জাতীয় ঐতিহ্য অনুশীলন ও সংরক্ষণে বিশেষ আগ্রহ রয়েছে তাঁর  । এছাড়াও বাদ্যযন্ত্র যেমন গিটার ও হারমোনিয়াম বাজানোর শখ রয়েছে ।


Share with :

Facebook Facebook