মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৮

বাংলাদেশ তাঁত বোর্ড

পটভূমি

বাংলাদেশের অর্থনীতিতে তাঁত শিল্প গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে আসছে। গ্রামীণ কর্মসংস্থানের ক্ষেত্রে কৃষির পরই তাঁত শিল্পের স্থান। এ শিল্পে সারাবছর ১৫ লক্ষ লোক নিয়োজিত আছে । প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে এশিল্পে প্রায় ১.২৫ কোটি লোক নিয়োজিত রয়েছে। সর্বশেষ তাঁত শুমারি অনুযায়ী তাঁত শিল্পে বছরে প্রায় ৬৮.৭০ কোটি মিটার তাঁতবস্ত্র উৎপাদিত হয়, যা দেশের অভ্যন্তরীণ বস্ত্র চাহিদার ৪০% পূরণ করে। এ শিল্পে বছরে মূল্য সংযোজনের পরিমাণ প্রায় ১২২৭.০০ কোটি টাকা। গত ০৫ বছরে তাঁত বস্ত্র রপ্তানির মাধ্যমে আয় হয় ৫১২ কোটি মার্কিন ডলার।

তাঁত শিল্পের মানোন্নয়নে বিগত ১৯৭২ সাল থেকেই বাংলাদেশে প্রাতিষ্ঠানিক উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তাঁতের উন্নয়নে ছিলেন গভীরভাবে আগ্রহী। তাই সে সময় তিনি সমবায় সমিতি এবং বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প সংস্থার মাধ্যমে তাঁতিদের ন্যায্য মূল্যে সুতা সরবরাহের ব্যবস্থা করেছিলেন। দেশের লক্ষ লক্ষ গরিব ও নিঃস্ব তাঁত শিল্পীদের স্ব-পেশায় নিয়োজিত রেখে তাঁদের নিয়মিত প্রয়োজনীয় উপকরণ ও সেবা সরবরাহের ব্যবস্থা করে, উপযুক্ত প্রশিক্ষণ প্রদান ও আধুনিক লাগসই প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে পেশাগত দক্ষতা ও উৎপাদন বৃদ্ধি নিশ্চিত করা এবং উৎপাদিত দ্রব্য সামগ্রীর সুষ্ঠু বাজারজাতকরণে সহায়তা দান ও তাঁদের আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নয়ন ত্বরান্বিত করার লক্ষ্যে প্রথম পঞ্চবার্ষিকী পকিল্পনায় (১৯৭৩-৭৮) প্রদত্ত গুরুত্বানুসারে ১৯৭৭ সালে ৬৩ নং অধ্যাদেশ বলে বাংলাদেশ হ্যান্ডলুম বোর্ড (বাংলাদেশ তাঁত বোর্ড-বাতাঁবো) গঠিত হয়। পরবর্তীতে বাংলাদেশ জাতীয় সংসদে প্রণীত ২০১৩ সনের ৬৪ নং আইন দ্বারা Bangladesh Handloom Board Ordinance 1977 রহিত করে বাংলাদেশ তাঁত বোর্ড পুনর্গঠিত হয়।

০২। ভিশনঃ

       শক্তিশালী তাঁত খাত।

০৩। মিশনঃ    

      তাঁতিদের প্রশিক্ষণের মাধ্যমে পেশাগত দক্ষতা বৃদ্ধি, চলতি মূলধন যোগান, গুণগত মানসম্পন্ন তাঁতবস্ত্র উৎপাদন এবং   

      বাজারজাতকরণের সুবিধা সৃষ্টির মাধ্যমে তাঁতিদের আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নয়ন।                                             

০৪। বোর্ডের কার্যাবলীঃ

(ক) হস্তচালিত তাঁত শিল্পের জরিপ, শুমারি এবং পরিকল্পনা গ্রহণ, পরিসংখ্যান সংরক্ষণ।

(খ)  হস্তচালিত তাঁত শিল্পের উন্নয়ন ও উৎপাদনমূলক সেবা প্রদান।

(গ)  হস্তচালিত তাঁত শিল্পের জন্য ঋণ সুবিধা সৃষ্টি।

(ঘ)   তাঁতিগণকে প্রয়োজনীয় উপকরণ ও কাঁচামাল ন্যায্যমূল্যে সরবরাহের ব্যবস্থা গ্রহণ এবং উৎপাদিত পণ্য

       গুদামজাতকরণের ব্যবস্থা করা।

(ঙ)   তাঁত পণ্যকে জনপ্রিয় করার উদ্দেশ্যে দেশ-বিদেশে প্রচার কার্যক্রম গ্রহণ।

(চ)   তাঁত পণ্য দেশ-বিদেশে বাজারজাতকরণের ব্যবস্থা গ্রহণ।

(ছ)   তাঁতি ও তাঁত শিল্পের সাথে সম্পর্কিত ব্যক্তিদের প্রশিক্ষণ প্রদানের মাধ্যমে দক্ষতা বৃদ্ধি।

(জ)  তাঁতিদের বয়নপূর্ব ও বয়নোত্তর সুযোগ সুবিধা প্রদানের লক্ষ্যে পরিকল্পনা প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন।

(ঝ)  তাঁতজাত দ্রব্যাদির গুণগত মান ও প্রস্তুতকারী দেশ সম্পর্কিত সনদপত্র প্রদান।

০৫। বোর্ডের পরিচালনা পর্ষদঃ

সার্বক্ষণিক সদস্যঃ

১। চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ তাঁত বোর্ড ;

২। সদস্য (সমিতি ও বাজারজাতকরণ), বাংলাদেশ তাঁত বোর্ড ;

৩। সদস্য (ওএন্ডএম), বাংলাদেশ তাঁত বোর্ড ;

৪। সদস্য (পরিকল্পনা ও বাস্তবায়ন), বাংলাদেশ তাঁত বোর্ড ;

৫। সদস্য (অর্থ), বাংলাদেশ তাঁত বোর্ড ;

৬। সচিব, বাংলাদেশ তাঁত বোর্ড।

খন্ডকালীন সদস্যঃ

৬। বাংলাদেশ রেশম উন্নয়ন বোর্ডের মহাপরিচালক;

৭। বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয় কর্তৃক মনোনীত কর্মকর্তা যুগ্ম-সচিব (বস্ত্র-২);

৮। অর্থ বিভাগ কর্তৃক মনোনীত কর্মকর্তা যুগ্ম-সচিব (ব্যয়নিয়ন্ত্রণ);

৯। লেজিসলেটিভ ও সংসদ বিষয়ক বিভাগ কর্তৃক মনোনীত কর্মকর্তা যুগ্ম-সচিব (ডা.);

১০। বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ বস্ত্র দপ্তরের পরিচালক;

১১। বাংলাদেশ টেক্সটাইল মিলস কর্পোরেশন কর্তৃক মনোনীত কর্মকর্তা পরিচালক (বাণিজ্য);

১২। বাংলাদেশ জাতীয় সমবায় শিল্প সমিতি লিমিটেডের সভাপতি;

১৩। জাতীয় তাঁতি সমিতির সভাপতি ;

১৪। জনাব মোঃ শাহজাহান বেপারী, গ্রাম: কাহে তারা, পো: নাগের হাট, উপজেলা: লৌহজং, জেলা: মুন্সিগঞ্জ;

১৫। জনাব মোবারক হোসেন সরকার, গ্রাম: বালসাবাড়ি, ডাকঘর: উল্লাপাড়া আর/এস, জেলা: সিরাজগঞ্জ।



Share with :

Facebook Facebook