মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

পাট অধিদপ্তর

. পটভূমি

          পাটের ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ এবং পাটের বৈদেশিক বাণিজ্য তদারকির জন্য ১৯৫৩ সালে তৎকালীন কেন্দ্রীয় সরকারের অধীনে প্রথমে জুট বোর্ড গঠিত হয়। স্বাধীনতার পর ১৯৭৩ সালের এপ্রিল মাসে জুট বোর্ড বিলুপ্ত করে অর্থ মন্ত্রণালয়ের অধীনে পাট বিভাগ সৃষ্টি করা হয়। ১৯৭৬ সালে স্বতন্ত্র পাট মন্ত্রণালয় সৃষ্টি হয়। উহার অধীনে সংযুক্ত দপ্তর হিসেবে পাট পরিদপ্তর সৃষ্টি করা হয়। পরবর্তীতে কাঁচাপাট ও পাটজাত পণ্যের মান নিয়ন্ত্রণকল্পে বিশ্ব ব্যাংকের সুপারিশের আলোকে ১৯৭৮ সালে পাট ও পাটপণ্য পরিদর্শন পরিদপ্তর নামে অপর একটি পরিদপ্তর সৃষ্টি করা হয়। ১৯৯২ সালে পাট মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ সাবেক ‘পাট পরিদপ্তর’ এবং ‘পাট ও পাটপণ্য পরিদর্শন পরিদপ্তর’ একীভূত করে পাট অধিদপ্তর গঠিত হয়। সাবেক  পরিদপ্তর দুটির  মোট জনবলের সংখ্যা ছিল ৭৯৩ জন। নবগঠিত পাট অধিদপ্তরের জনবল নির্ধারণ করা হয় ৪৯৪ জন । সমাপ্ত উন্নয়ন প্রকল্পের ১২০ সংখ্যক জনবল পাট অধিদপ্তরের রাজস্বখাতে স্থানান্তরিত হওয়ায় বর্তমানে প্রস্তাবিত জনবলের সংখ্যা ৬০৪ জন । সমগ্র বাংলাদেশে পাট অধিদপ্তরের  (১) ১৮ টি আঞ্চলিক অফিস (ঢাকা, চট্টগ্রাম ও খুলনায় অবস্থিত ৩টি পাটপণ্য পরীক্ষাগারসহ)

(২) ৪৩ টি মুখ্য পরিদর্শকের কার্যালয় (৩) ৭৯ টি পরিদর্শকের কার্যালয় রয়েছে। পাট অধিদপ্তরে ২০১৭-১৮ অর্থ বছরে বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশন সচিবালয়ের মাধ্যমে ৯ম গ্রেডভুক্ত ০৩ (তিন) জন সহকারী পরিচালক এবং ১০ম গ্রেড ভুক্ত মোট ১০ (দশ) জন মুখ্য পরিদর্শক নিয়োগ প্রদান করা হয়েছে এছাড়া বর্তমানে ৩য় ৪র্থ শ্রেণীর বিভিন্ন বিভিন্ন পদে নিয়োগ  কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন আছে

. ভিশন মিশন

২.১ ভিশন :  পাটখাতকে নিরাপদ, শক্তিশালী ও প্রতিযোগিতা সক্ষম করে গড়ে তোলা

২.২ মিশন :  পাটচাষী, পাটকল ব্যবসায়ীদেরকে সহায়তা প্রদানের মাধ্যমে পাট ও পাটজাত পণ্যের আভ্যন্তরীণ ব্যবহার বৃদ্ধি ও  বাজার সম্প্রসারণ ।

২.৩ কৌশলগত উদ্দেশ্যসমূহ :

পাট পাটজাত পণ্যের ব্যবসায়ে সহযোগিতা প্রদানের নিমিত্ত আইন বিধিমালা প্রয়োগ জোরদারকরণ;

□  দক্ষ প্রয়োজনীয় জনবল তৈরীর নিমিত্ত সাংগঠনিক কাঠামো সুসংগঠিতকরণ;

□  প্রশিক্ষণের মাধ্যমে মানবসম্পদ উন্নয়ন;

□  পাট পাটজাত পণ্যের উৎপাদন, মান নিয়ন্ত্রণ, অভ্যন্তরীণ ব্যবহার বৃদ্ধি আন্তর্জাতিক বাজার সম্প্রসারণে

 সহযোগিতা প্রদান;

□  পাটখাতে বিনিয়োগের সুযোগ সম্প্রসারণ

৩. অধিদপ্তরের দায়িত্ব ও কার্যাবলীর সংক্ষিপ্ত বিবরণ

  1. পাট আইন-২০১৭ প্রয়োগ ও বাস্তবায়ন;
  2. পণ্যে পাটজাত মোড়কের বাধ্যতামূলক ব্যবহার আইন-২০১০ এবং পণ্যে পাটজাত মোড়কের বাধ্যতামূলক ব্যবহার বিধিমালা-২০১৩ এর প্রয়োগ ও বাস্তবায়ন;
  3. পাট ও পাটপণ্য উৎপাদন, বাজারজাতকরণ, রপ্তানি ও রপ্তানি আয়ের যাবতীয় তথ্যাদি সংগ্রহ ও সমন্বিত প্রতিবেদন প্রস্তুতকরণ;
  4. পাট চাষের উন্নয়ন, প্রসার, গবেষণা ;
  5. স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক বাজার চাহিদার সাথে সঙ্গতি রেখে পাট ও পাটজাত পণ্যের উৎপাদন বৃদ্ধি ;
  6. পাট চাষের জন্য ভূমি ব্যবহার পরিকল্পনা ;
  7. বহুমুখী পাটজাত পণ্যের গবেষণা, উদ্ভাবন ;
  8. পাট চাষীদের প্রয়োজনীয় তথ্য সরবরাহ ;
  9. পাটজাত পণ্যের ব্যবহার বৃদ্ধি, বাজার সম্প্রসারণে প্রয়োজনীয় প্রণোদনা Ges পুরষ্কার cÖ`vb বিষয়ে কার্যক্রম গ্রহণ;
  10. পাটকলসমুহে উৎপাদন পর্যায়ে পণ্য মান নিয়ন্ত্রণ,পণ্যের মান নিশ্চতকরণ এবং পরামর্শ ও সহায়তা প্রদান;
  11. পাট ও পাটজাত পণ্যের ব্যবসার লাইসেন্স প্রদান ও নবায়ন;
  12. পাট ব্যবসায়ের অনিয়ম ও অসাধুতা রোধ;
  13. পাট ও পাটজাত দ্রব্যের মান নিয়ন্ত্রণ এবং
  14. “উন্নত প্রযুক্তিনির্ভর পাট ও পাটবীজ উৎপাদন এবং সম্প্রসারণ  ” শীর্ষক প্রকল্প বাস্তবায়ন

. প্রশিক্ষণ

.১ পাট অধিদপ্তরের ২০১৭-১৮  অর্থ বছরের বিভিন্ন প্রশিক্ষণ কার্যক্রম :

ক্যাটাগরি

প্রশিক্ষণের সংখ্যা

কর্মকর্তা

কর্মচারী

মোট

কম্পিউটার প্রশিক্ষণ

০৫

০৩

০২

০৫ জন

অভ্যন্তরীণ প্রশিক্ষণ

টি

৩০

৩০

৬০ জন

ইন হাউজ প্রশিক্ষণ

৪৮ টি

১৩০

১১০

২৪০ জন

বিদেশ প্রশিক্ষণ

-

জন

উদ্বুদ্ধকরণ কর্মশালা

৬২ টি

প্রতি কর্মশালায় ৫০ জন

৩১০০ জন

ওয়ার্কশপ/সেমিনার

১২ টি

প্রতি সেমিনারে ৫০ জন

৬০০ জন

পাট চাষী প্রশিক্ষণ

৪২টি জেলায়

১৯,৯৮৫ জন

 


Share with :

Facebook Facebook